বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন

বালাসী-বাহাদুরাবাদ নৌরুটে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১০ মে, ২০২২

নাব্যতা সংকটের কারণে গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার বালাসী-বাহাদুরাবাদঘাট নৌরুটে একদিন বন্ধ থাকার পর আবারও লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। বালাসীঘাট লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি মেহেদী হাসান লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু সেতুর ওপর চাপ কমানো এবং উত্তরবঙ্গের আট জেলার সঙ্গে যাতায়াত ব্যবস্থা সহজ করতে বিআইডব্লিউটিএ কতৃর্পক্ষের তত্বাবধায়নে বালাসী-বাহাদুরাবাদঘাট নৌরুটে একমাস আগে গত ৮ এপ্রিল পরীক্ষামূলকভাবে লঞ্চ সার্ভিসের উদ্বোধন করা হয়। এরুটে ৫টি লঞ্চ চলাচলের কথা থাকলেও শুরু থেকেই এমভি মহব্বত ও রিভারস্টার নামে দুটি লঞ্চ চলাচল করছে। শনিবার (৭ মে) সকালে বাহাদুরাবাদ ঘাট থেকে বালাসীঘাটে আসার পথে ব্রহ্মপুত্র নদের ডুবোচরে এমভি মহব্বত নামের লঞ্চটি আটকে যায়। এরআগে বাহাদুরাবাদগামী রিভারস্টার নামে অপর লঞ্চটিও নদের ডুবোচরে আটকে যায়। পরে নৌকা যোগে লঞ্চে আটকে পড়া যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছে দেয়া হয়। একারণে শনিবার দুপুর থেকে রোববার সকাল ৯টা পর্যন্ত এ নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখে ঘাট কর্তৃপক্ষ।

বালাসীঘাট লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি মেহেদী হাসান বলেন, ‘ব্রহ্মপুত্র নদের তলদেশে বালু ভরাটের কারণে নাব্যতা সংকট দেখা দেয়। এতে করে প্রায়ই লঞ্চ পরিচালনায় বাধার সম্মুখিন হতে হচ্ছে। আটকে যাওয়া লঞ্চ দুইটির নিচ থেকে বালু অপসারণ করে লঞ্চ দুইটিকে ঘাটে নিয়ে যাওয়া হয়। রোববার সকাল থেকে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। এখন যাত্রীরা নিয়মিতভাবে বালাসী-বাহাদুরাবাদ রুটে চলাচল করতে পারবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ ডুবোচরের চিহ্নিত জায়গাগুলো পরিদর্শনে গেছেন। তারা দ্রত নদী ড্রেজিং এর আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি বলেন, নিয়মিতভাবে এই রুটে একটি ড্রেজিং ব্যবস্থা চালু রাখতে হবে। না হলে প্রায়ই ডুবোচরে লঞ্চ আটকে যাওয়ার মতো ঘটনা ঘটতে থাকবে।’

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে একনেকের এক সভায় বালাসী থেকে বাহাদুরাবাদ পর্যন্ত নৌরুটটি আবারও চালু করে ফেরিঘাট নির্মাণ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রকল্পটির প্রথম ব্যয় ধরা হয়েছিল ১২৪ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। পরবর্তীতে দুবার সংশোধন করে প্রকল্প ব্যয় বাড়িয়ে ১৪৫ কোটি ২৭ লাখ টাকা খরচ করে বাস টার্মিনাল, টোল আদায় বুথ, পুলিশ ব্যারাক, ফায়ার সার্ভিস ও আনছার ব্যারাকসহ বেশ কিছু স্থাপনা নির্মাণ করা হয়। কিন্তু

বিআইডব্লিউটিএ কারিগরী কমিটি হঠাৎ করে নাব্য সংকট ও ২৬ কিলোমিটার বিশাল দূরত্বের নৌপথসহ বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরে এরুটে ফেরি সার্ভিস চলাচলের অনুপযোগী বলে প্রতিবেদন দেয়। পরবর্তীতে পরীক্ষামূলকভাবে ৮ এপ্রিল লঞ্চ সার্ভিসের উদ্ধোধন করেন নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

All Rights Reserved © 2022 Gaibandha Report

কারিগরি সহায়তায় : শাহরিয়ার হোসাইন