শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন

নাবালিকাকে অপহরণের পর ধর্ষণ: যাবজ্জীবন এক ও দুই জনকে চৌদ্দ বছরের কারাদন্ড

নিজম্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২২

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় তের বছরের নাবালিকাকে অপহরণের পর ধর্ষণ করার দায়ে মোন্নাফ মিয়া (২৪) কে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। একাজে সহযোগীতা করার দায়ে মনি মিয়া (২৮) ও শাহিন মিয়া (২৫) কে চৌদ্দ বছরের কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে গাইবান্ধার নারী ও শিশু ট্রাইবুন্যাল-১ আদালতের বিচারক কে এম শাহিন আহম্মেদ এ আদেশ দেন।

যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্ত মোন্নাফ মিয়া উপজেলার গ্রামের মৃত দক্ষিণ মরুয়াদহ ছাইদার রহমানের ছেলে। চৌদ্দ বছরের দন্ডপ্রাপ্ত মনি মিয়া ওই গ্রামে গোলাম হোসেনের ছেলে ও শাহিন মিয়া উপজেলার পশ্চিম ছাপড়হাটি গ্রামের ছাইদার রহমানের ছেলে। আদেশের সময় আসামী তিনজনই আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পরে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, ২০১১ সালের ২৩ জানুয়ারি বিকেলে মরুয়াদহ এইচ.এম.কে দাখিল মাদ্রসার অষ্টম শ্রেনির এক ছাত্রী (১৩) প্রাইভেট পড়ে বাড়ী আসার পথে মরুয়াদহ গ্রামের চৌরাস্তা থেকে মোন্নাফ মিয়া, মনি ও শাহিনের সহযোগীতায় ওই ছাত্রীকে জোর পূর্বক মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায়। প্রাইভেট পড়ে ওই ছাত্রী বাড়িতে ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন খুঁজতে থাকে। এলাকারবাসীর কাছ থেকে ঘটনার বিবরণ জানতে পারেন পরিবারের লোকজন।

অনেক খোঁজাখুজি করেও সন্ধান না পেয়ে ১১ ফেব্রুয়ারি ভূক্তভোগী ওই ছাত্রীর বাবা বাদি হয়ে মোন্নাফ, মনি ও শাহিনসহ তিন জনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি অপহরণের মামলা দায়ের করেন। পরে ৮মে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগ এনে আদালতে চার্জশীট দাখিল করে পুলিশ।

এব্যপারে নারী ও শিশু ট্রাইবুন্যাল-১ আদালতের রাষ্ট্র পক্ষের বিশেষ আইনজীবী গুলশান নাহার মুনমুন জানান, সাত জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি মোন্নাফকে যাবজ্জীবন ও সহযোগীতা করায় আসামি মনি এবং শাহিনকে চৌদ্দ বছর কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

All Rights Reserved © 2022 Gaibandha Report

কারিগরি সহায়তায় : শাহরিয়ার হোসাইন